Advanced
Search
  1. Home
  2. অনিদ্রার কারণ ও সমাধান

অনিদ্রার কারণ ও সমাধান

  • 10/03/2024
  • 0 Likes
  • 28 Views
  • 0 Comments

ঘুম সহজে আসে না এবং তা প্রতিনিয়তই। তাহলে হয়তো আপনি অনিদ্রায় ভুগছেন।

বিভিন্ন কারণে অনিদ্রার সমস্যা দেখা দিতে পারে। একটি স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে সঠিক কারণ খুঁজে বের করা এবং তা সমাধানের কিছু উপায় জানানো হয়েছে।

 

 

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একজন স্নায়ু বিশেষজ্ঞ এবং ঘুম বিশেষজ্ঞ, এমডি নেট ফাভিনির মতে, “প্রত্যেকেরই কোনো না কোনো সময়ে ঘুমের সমস্যা থাকে। যখন ঘুমের সমস্যা জীবনের অন্যান্য ক্ষেত্রগুলিকে প্রভাবিত করতে শুরু করে, তখন এটি একটি অনিদ্রার সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়।”

অনিদ্রার কারণ ও সমাধান
অনিদ্রার কারণ ও সমাধান

অনিদ্রার লক্ষণ

– তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠা এবং পরে ঘুমানো।
– অনেকক্ষণ বিছানায় শুয়ে থাকার পরও অনিদ্রা।
– রাতে অবিরাম হাঁটা।

এই ধরনের সমস্যা যত বেশি দিন থাকবে, তত বেশি স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দেবে।

 

নিদ্রাহীনতার কারণে সাধারণত নিচের সমস্যাগুলো দেখা যায়
– অস্বস্তি, বিষণ্নতা এবং উদ্বেগ।

– অসাবধানতা, অস্থিরতা, স্মৃতিশক্তি হ্রাস।

– শক্তি এবং অনুপ্রেরণার অভাব।

– মাথা ব্যথা, শরীরে ব্যথা, গ্যাসের সমস্যা ইত্যাদি।

 

যদি ক্লান্তি এবং ঘুমের সমস্যাগুলি নেতিবাচকভাবে কাজকে প্রভাবিত করে বা ভাল সম্পর্ক বজায় রাখতে হস্তক্ষেপ করে তবে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত।

 

অনিদ্রার প্রকার

অনিদ্রার সময়কালের উপর ভিত্তি করে একে দুই ভাগে ভাগ করা যায়

‘তীব্র’ অনিদ্রা: অনিদ্রা একটি নির্দিষ্ট কারণ যেমন মানসিক চাপ বা উদ্বেগের কারণে ঘটে এবং কয়েক দিন বা সপ্তাহ ধরে থাকে।

দীর্ঘস্থায়ী বা দীর্ঘস্থায়ী অনিদ্রা: এটি সাধারণত শারীরিক বা মানসিক স্বাস্থ্যের কারণে হয়ে থাকে এবং এটি দীর্ঘমেয়াদী – অন্তত তিন মাসের জন্য প্রতি সপ্তাহে তিনবার।

 

কারণ

সাধারণত, প্রাথমিক এবং মাধ্যমিক কারণে অনিদ্রা দেখা দেয়। উভয়ের মধ্যে পার্থক্য হল সেকেন্ডারি অনিদ্রা সাধারণত অন্য স্বাস্থ্য সমস্যা বা ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। আর প্রাথমিক অনিদ্রা হল প্রধান অসুখ।

 

প্রাথমিক অনিদ্রা

এটি কোনও স্বাস্থ্য সমস্যার সাথে সম্পর্কিত নয়, এটি সাধারণত গুরুতর অনিদ্রা। এটি প্রধানত নিম্নলিখিত কারণে হয় –

স্ট্রেস: চাকরির ইন্টারভিউ, পরীক্ষা এবং এমনকি প্রিয়জনের মৃত্যু বা ব্রেকআপের মতো জীবনের বড় পরিবর্তন এই ধরনের সমস্যার কারণ হতে পারে।

আরামদায়ক ঘুমের পরিবেশের অভাব: উদাহরণস্বরূপ, ঘুমানোর সময় খুব গরম, বা খুব ঠান্ডা ঘুমের সমস্যাও হতে পারে।

অনিয়মিত ঘুমের রুটিন: অস্বাস্থ্যকর ঘুমের অভ্যাস যেমন প্রতিদিন একই সময়ে বিছানায় না যাওয়া। ঘুমের রুটিনে পরিবর্তন এই ধরনের অনিদ্রার কারণ।

এই ধরনের সমস্যা একটি ডাক্তারের সাহায্য ছাড়াই সমাধান করা যেতে পারে।

 

সেকেন্ডারি অনিদ্রা

সাধারণত, স্বাস্থ্য সমস্যার কারণে এই ধরনের অনিদ্রার সমস্যা দেখা দেয়। এছাড়াও, এটি বিভিন্ন ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ফলে ঘটতে পারে।

ফলে নানা সমস্যা দেখা দেয়। উদাহরণ স্বরূপ-

 

গর্ভাবস্থা: গবেষণায় দেখা গেছে যে প্রায় 78 শতাংশ মহিলা গর্ভাবস্থায় অনিদ্রা অনুভব করেন। গর্ভাবস্থার তিন মাস পর এ ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। কারণ এই সময়ে শিশু বড় হয় এবং শরীরের উপর চাপ সৃষ্টি হয়।

দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা: দীর্ঘস্থায়ী শারীরিক সমস্যা যেমন শ্বাসকষ্ট, অ্যাসিডিটি, দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা, হরমোন ও থাইরয়েড এবং স্নায়বিক সমস্যা যেমন পারকিনসনের কারণে ঘুমের সমস্যা হয়।

মানসিক স্বাস্থ্য: স্ট্রেস ঘুমের সমস্যা সৃষ্টি করে। উদ্বেগ এবং বিষণ্নতা অনিদ্রা সৃষ্টি করে। যদি এটি ঘটে তবে থেরাপি নেওয়া প্রয়োজন।

অতিরিক্ত ক্যাফেইন, নিকোটিন এবং অ্যালকোহল ঘুমের সমস্যা সৃষ্টি করে। দীর্ঘস্থায়ী স্বাস্থ্য সমস্যার ঝুঁকি রয়েছে।

ওষুধ: উদ্বেগজনিত সমস্যার জন্য দেওয়া ওষুধ, উচ্চ রক্তচাপের জন্য আলফা, বিটা এবং আর্থ্রাইটিসের জন্য দেওয়া স্টেরয়েড অনিদ্রার কারণ হতে পারে।

 

চিকিত্সা

এ ধরনের সমস্যা দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। নিদ্রাহীনতা থেরাপি, জীবনযাত্রার পরিবর্তন এবং এমনকি কিছু প্রাকৃতিক কৌশল দ্বারা পরিচালিত হতে পারে।

প্রাকৃতিক উপায়: একটি আরামদায়ক পরিবেশ তৈরি করুন এবং ঘুমানোর আগে মানসিক কার্যকলাপে নিযুক্ত হন। মোবাইল ফোন ব্যবহার না করে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এক কাপ ক্যামোমিল চা পান করুন, আপনি আরাম বোধ করবেন।

মেডিটেশন: মেডিটেশন মানুষের মনকে শান্ত রাখে এবং মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। নিয়মিত মেডিটেশন করলে ভালো ঘুম হয়।

নিয়মিত ব্যায়াম: গবেষণায় দেখা গেছে যে সপ্তাহে পাঁচ দিন অন্তত ৩০ মিনিট ব্যায়াম করলে ঘুমের মান উন্নত হয়।

Leave Your Comment

error: Content is protected !!