Advanced
Search
  1. Home
  2. জরায়ুমুখের ক্যান্সার রোধে ৩০ বছরের মধ্যে বিয়ে জরুরি।

জরায়ুমুখের ক্যান্সার রোধে ৩০ বছরের মধ্যে বিয়ে জরুরি।

  • 31/03/2024
  • 0 Likes
  • 22 Views
  • 0 Comments

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ডা. মোঃ শরফুদ্দিন আহমেদ বলেছেন, জরায়ু মুখের ক্যান্সার প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হলো প্রাথমিক পর্যায়ে শনাক্তকরণ। সার্ভিকাল ক্যান্সার সময়মতো শনাক্ত করতে সারা দেশে স্ক্রিনিং কার্যক্রম জোরদার করা উচিত।

জরায়ুমুখের ক্যান্সার রোধে ৩০ বছরের মধ্যে বিয়ে জরুরি
জরায়ুমুখের ক্যান্সার রোধে ৩০ বছরের মধ্যে বিয়ে জরুরি

রোববার (১৯ মার্চ) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের এ ব্লক মিলনায়তনে কেন্দ্রীয় সেমিনার উপ-কমিটি আয়োজিত ‘জরায়ু বা জরায়ুমুখের ক্যান্সার’ বিষয়ক কেন্দ্রীয় সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বিএসএমএমইউ ভিসি বলেন, গাইনোকোলজিক্যাল অনকোলজি বিভাগ, অবস অ্যান্ড গাইনোকোলজি বিভাগ, ভাইরোলজি বিভাগ, প্যাথলজি বিভাগ, অনকোলজি বিভাগ, রেডিওলজি বিভাগকে সার্ভিকাল ক্যান্সার চিকিৎসায় সমন্বয় করে কাজ করতে হবে। একই সঙ্গে সময়মতো সার্ভিকাল ক্যান্সার শনাক্ত করতে সারাদেশে স্ক্রিনিং কার্যক্রম জোরদার করতে হবে।

শরফুদ্দিন আহমেদ জরায়ু মুখের ক্যানসারের ঝুঁকি রোধে ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে মেয়েদের বিয়ের দিকে মনোযোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, বাল্যবিবাহ যেমন জরায়ুমুখের ক্যান্সারের অন্যতম কারণ, দেরিতে বিয়েও একটি কারণ। তবে জরায়ুমুখের ক্যান্সার প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হল প্রাথমিক সনাক্তকরণ।

তিনি বলেন, বিএসএমএমইউতে সার্ভিকাল ক্যান্সার শনাক্তকরণ ও চিকিৎসার সব ধরনের সুবিধা রয়েছে। তবে বাংলাদেশের মতো জনবহুল দেশে এর সুফল সবার কাছে পৌঁছালে দেশব্যাপী এই সেবা কার্যক্রম জোরদার করা উচিত।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জরায়ু মুখের ক্যান্সারের ওপর একটি বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস অ্যান্ড গাইনোকোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. ফারজানা শারমিন, গাইনোকোলজিক্যাল অনকোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. ফারহানা খাতুন, মানোয়ারা বেগমের কনসালটেন্ট ডা.

শুরুতেই ডাঃ ফারজানা শারমিন তার ‘মেনোপজ পরবর্তী রক্তপাতের মূল্যায়ন’ শিরোনামের নিবন্ধে উল্লেখ করেছেন, মেনোপজের পরেও যদি মহিলাদের রক্তপাত হয় তবে তাকে পোস্ট মেনোপজাল ব্লিডিং বলা হয় এবং এটি মহিলাদের স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ কারণ। সাধারণত, 90 শতাংশ ক্ষেত্রে এই রক্তপাতের কারণ স্বাভাবিক। কিন্তু 10 শতাংশ ক্ষেত্রে এটি সার্ভিকাল ক্যান্সারের জন্য।

তিনি বলেন, ঋতুস্রাব বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরেও যদি এই ধরনের রক্তপাত হয় তবে প্রত্যেক মহিলার ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী পরীক্ষা ও চিকিত্সা করা উচিত। কারণ মহিলাদের জরায়ুমুখের ক্যান্সার জটিলতা বা সমস্যা সৃষ্টির আগেই ধরা পড়লে তা প্রতিরোধ করা যায়। অতএব, যেসব মহিলারা সার্ভিকাল ক্যান্সারের ঝুঁকিতে রয়েছেন তাদের মেনোপজের পরেও নিয়মিত ডাক্তারি পরামর্শ এবং ফলোআপ করা উচিত।

পরে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. ফারহানা খাতুন। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী জরায়ু মুখের ক্যান্সারের প্রকোপ কমে গেলেও বাংলাদেশের মহিলাদের মধ্যে জরায়ু মুখের ক্যান্সার দ্বিতীয় সর্বাধিক সাধারণ ক্যান্সার। গ্লোবোকন 2020 এর তথ্য অনুসারে, প্রতি বছর 8 হাজার 68 জন মহিলা জরায়ুমুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হন এবং প্রতি বছর 5 হাজার 214 জন মারা যান। বাংলাদেশে প্রায় 54 মিলিয়ন মহিলা 15 বছর বয়স থেকে শুরু করে জরায়ু মুখের ক্যান্সারের ঝুঁকিতে রয়েছে। বাল্যবিবাহ, কম বয়সে সন্তান ধারণ করা, ২ বা ৩টির বেশি সন্তান হওয়া, ধূমপান ইত্যাদি জরায়ুমুখের ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়।

ডাঃ ফারহানা বলেন, জরায়ু ক্যান্সারের প্রধান উপসর্গ হচ্ছে অনিয়মিত রক্তপাত, মিলনের সময় রক্তপাত, অতিরিক্ত স্রাব ও দুর্গন্ধযুক্ত স্রাব ইত্যাদি। জরায়ুমুখের ক্যান্সারের চিকিৎসা নির্ভর করে রোগটি কোন পর্যায়ে ধরা পড়েছে তার উপর।

তিনি আরও বলেন, প্রাথমিক অবস্থায় ধরা পড়লে সার্জারির মাধ্যমে চিকিৎসা করা যায় এবং স্টেজ 4 জরায়ু ক্যান্সার রেডিওথেরাপির মাধ্যমে চিকিৎসা করা যায়। কিন্তু আমাদের দেশে জরায়ু ক্যান্সারের জন্য আরও গাইনোকোলজিক্যাল অনকোলজি বিশেষজ্ঞ এবং আরও রেডিওথেরাপি মেশিন দরকার। তাই ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আগেই প্রাথমিক পর্যায়ে এই রোগ শনাক্ত করা গেলে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে ওঠা সম্ভব।

সবশেষে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. মানোয়ারা বেগম। জরায়ুমুখের ক্যান্সার শনাক্তকরণ ও চিকিৎসার বিষয়ে তিনি বলেন, জরায়ুমুখের ক্যান্সার পুরোপুরি প্রতিরোধ করা যায়। যেহেতু সার্ভিকাল ক্যান্সার ক্যান্সার সনাক্তকরণ পরীক্ষার মাধ্যমে আমাদের দেশে দ্বিতীয় সর্বাধিক সাধারণ ক্যান্সার, তাই 30 বছরের বেশি বয়সী সবাইকে জরায়ুর ক্যান্সার সনাক্তকরণ সম্পর্কে সচেতন করা উচিত। ভায়া পরীক্ষার মাধ্যমে জরায়ুর ক্যান্সার শনাক্ত করা যায়।

মনোয়ারা বেগম বলেন, ভায়া ছাড়াও এইচপিভি ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে এই ক্যান্সার শনাক্ত করা যায়। HPV ভ্যাকসিন সমস্ত মেয়েকে (9-14 বছর বয়সী) দেওয়া উচিত এবং জরায়ুর ক্যান্সার প্রতিরোধের জন্য বাল্যবিবাহ বন্ধ করা উচিত। 2 টির বেশি সন্তান থাকা নিষিদ্ধ করা উচিত। জরায়ু মুখের ক্যান্সার শনাক্ত করার জন্য সরকারের ইপিআই প্রোগ্রামে এইচপিভি ভ্যাকসিন প্রোগ্রাম অন্তর্ভুক্ত করা গুরুত্বপূর্ণ।

Leave Your Comment

error: Content is protected !!