Advanced
Search
  1. Home
  2. কেন স্তন ঝুলে পড়ে, জেনে নিন কারণ ও প্রতিকার।

কেন স্তন ঝুলে পড়ে, জেনে নিন কারণ ও প্রতিকার।

  • 16/03/2024
  • 0 Likes
  • 32 Views
  • 0 Comments

এই সমস্যা সমাধানের বিভিন্ন উপায় আছে। একটি উপায় হল ব্যায়াম করা এবং স্বাস্থ্যকরভাবে খাওয়া। আরেকটি উপায় হল স্তন থেকে অতিরিক্ত ত্বক অপসারণের জন্য অস্ত্রোপচার করা।

কেন স্তন ঝুলে পড়ে, জেনে নিন কারণ ও প্রতিকার
কেন স্তন ঝুলে পড়ে, জেনে নিন কারণ ও প্রতিকার

মহিলাদের প্রায়ই সমস্যা হয় কারণ তারা অতিরিক্ত চিন্তা করে, দীর্ঘ সময় কাজ করে এবং প্রচুর ভ্রমণ করে। হরমোনের পরিবর্তনের কারণে স্তন ঝুলে যেতে পারে।

 

চিকিত্সকরা অনেক সমস্যা চিহ্নিত করেছেন যা কারনে স্তন ঝুলে যেতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে বয়স, ওজন পরিবর্তন এবং ধূমপান। মহিলাদের জন্য সবচেয়ে বড় সমস্যা হল স্তন ঝুলে যাওয়া। প্রসবের পর অনেক নারীর স্তন ঝুলে যায়। এটি অনেক কাজ করা, অতিরিক্ত ওজন বা ধূমপানের কারণেও হতে পারে।

 

মহিলাদের বয়স বাড়ার সাথে সাথে তাদের ত্বক পাতলা এবং কম স্থিতিস্থাপক হতে পারে। এর ফলে স্তন ঝুলে যেতে পারে, বিশেষ করে যদি আপনি অনেক বাঁকানো বা নিচু করে থাকেন। এটি আপনার স্তনের বড় ক্ষতির কারণ হতে পারে, তাই আপনার বয়স বেড়ে গেলে সতর্ক থাকুন।

 

আপনি যদি ব্রা ব্যবহার না করেন তবে আপনার স্তন ঝুলে যেতে পারে। এটি ঘটে যখন আপনার স্তনের কোলাজেন ভেঙে যায়। এই গুরুত্বপূর্ণ প্রোটিন ছাড়া, আপনার স্তন ঝুলে যেতে পারে এবং ছোট হয়ে যেতে পারে। আপনি ব্রা ব্যবহার করে, নিয়মিত ব্যায়াম করে এবং স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার মাধ্যমে এটি হওয়া থেকে প্রতিরোধ করতে পারেন। আপনি ব্যায়াম করার সময় ব্রা ব্যবহার না করলে, আপনার স্তন আরও সহজে ঝুলে যেতে পারে।

 

ধূমপানের ফলে সময়ের সাথে সাথে স্তন ঝুলে যেতে পারে। কারণ ধূমপান শরীরের কোষে ইলাস্টিনকে প্রভাবিত করে। ইলাস্টিন ভেঙ্গে যেতে শুরু করলে স্তন ঝুলে যেতে পারে। উপরন্তু, আমাদের বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের স্তনগুলি বড় এবং ভারী হতে থাকে। কারণ স্থূলতা স্তন ঝুলে যাওয়ার একটি প্রধান কারণ।

 

যাদের শারীরিক গঠন এমন হয়ে থাকে তাদের স্তন অন্যদের তুলনায় ঝুলে পড়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। জেনেটিকাল কারণেও স্তন ঝুলে পড়ার সম্ভাবনা থাকে।

 

সমাধান-

১) প্রতিদিন নিয়ম মেনে ফিজিক্যাল এক্সারসাইজ করতে হবে। এতে আমাদের শারীরিক গঠন ঠিক থাকবে।

২) প্রতিদিনের খাবারের রুটিনে টাটকা শাক-সবজি এবং ফলমূল রাখতে হবে।

৩) যেকোনো ধরনের ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে হবে।

৪) বয়স এবং হাইট অনুযায়ী শরীরের ওজন স্বাভাবিক এবং নির্দিষ্ট রাখতে চেষ্টা করুন। শারীরিক ব্যালেন্স বজায় রাখাটা এক্ষেত্রে খুবই জরুরি।

৫) ধূমপান যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন।

৬) বাড়িতে বা অফিসে যেকোনো ধরনের কাজ করার ক্ষেত্রে চেষ্টা করতে হবে যতটা সম্ভব মেরুদণ্ড সোজা রেখে কাজ করতে।

৭) সারাদিনে ঘুম থেকে উঠার পর থেকে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগ পর্যন্ত পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করতে হবে।

৮) সঠিক মাপের এবং কাজ অনুযায়ী সঠিক বক্ষবন্ধী নির্ধারণ করতে হবে।

Leave Your Comment

error: Content is protected !!